প্রচ্ছদ > সিলেট প্রতিক্ষণ > সিলেটে যুবলীগ নেতা শামীম জেলহাজতে

সিলেটে যুবলীগ নেতা শামীম জেলহাজতে

সিলেট প্রতিক্ষণ

সময়ের ডাক ডেস্ক:সিলেট মহানগর যুবলীগের ১২ নং ওয়ার্ড সভাপতি শামীমকে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। গত মঙ্গলবার দুপুরে নগরীর শেখঘাটের আমেরিকা প্রবাসীর কাছে চাঁদা দাবীর মামলায় যুবলীগ নেতা শামীম আহমদ অতিরিক্ত চীফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিজ্ঞ বিচারক তাকে জেলহাজতে পাঠানোর আদেশ দেন। মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শামীমকে পুলিশ সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যায়। এর আগে একই মামলায় শাহিন আহমদ নামের একজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে সিলেট কোতোয়ালি থানা পুলিশ।

আদালত সূত্র জানায়, সিলেট মহানগর যুবলীগের ১২ নং ওয়ার্ড সভাপতি শামীম আহমদ শেখঘাটের শুভেচ্ছা ২৫০ নম্বর বাসার বাসিন্দা মৃত মুহিবুর রহমানের ছেলে। শামীম একই এলাকার শুভেচ্ছা ২৯৭ নম্বর বাসার বাসিন্দা আমেরিকা প্রবাসী ফররুখ আহমদ মনির মিয়ারদোকান কোঠার একটি জাল ভাড়াটিয়া চুক্তিনামা করেন। ওই চুক্তিনামা দিয়ে তিনি দোকানকোঠা আত্মসাতের পাঁয়তারা করছেন। একপর্যায়ে প্রবাসী ফররুখ আহমদের কাছে মোবাইলফোনে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। এ ঘটনায় ওই আমেরিকা প্রবাসীর কেয়ারটেকার আজম আলী বাদি হয়ে সিলেট কোতোয়ালি থানায় একটি মামলা ( ২১৪/২২) দায়ের করেন। পুলিশ প্রথমে শামীমের সহযোগী শাহিনকে গ্রেপ্তার করে। পরে শামীম আদালতে আত্মসমর্পণ করলে আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

সিলেট মহানগর যুবলীগের ১২ নং ওয়ার্ড সভাপতি শামীম আহমদ কারাগারে যাওয়ার আগে গণমাধ্যমকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন,‘ এটা তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র। ওই দোকান তিনি দখলের কোনো চেষ্টা করছেন না। দোকানটির মালিক তিনি।’

ভুক্তভোগী আমেরিকা প্রবাসী ফররুখ আহমদ মনির বলেন,‘ যুবলীগ নেতা পরিচয়ে শামীম আহমদ আমার দোকান দখলের অপচেষ্টা করছেন। তিনি আমার কাছে ১৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করেছেন। আমার কেয়ারটেকার আজম আলীকে দিয়ে আমি মামলা করি।’

আমেরিকা প্রবাসীর পক্ষে মামলার বাদিপক্ষের আইনজীবী এডভোকেট আতিকুর রহমান বলেন,‘ যুবলীগ নেতা শামীম আহমদ আমেরিকা প্রবাসী মনির মিয়ার দোকান দখলের লিপ্ত রয়েছেন। একই সঙ্গে চাঁদ দাবীর অপরাধও আছে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনেও পূর্বের মামলা রয়েছে। যে কারণে, বিজ্ঞ আদালত তাকে জামিন না দিয়ে কারাগারে পাঠানোর আদেশ করেন।’- প্রেস বিজ্ঞপ্তি।