প্রচ্ছদ > জাতীয় > শিক্ষার্থীদের চুল কর্তন: ফারহানার বিরুদ্ধে প্রমাণ মিলেছে

শিক্ষার্থীদের চুল কর্তন: ফারহানার বিরুদ্ধে প্রমাণ মিলেছে

জাতীয়

সময়ের ডাক
রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৪ শিক্ষার্থীর চুল কাটার সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি। এ ঘটনায় জড়িত বিশ্ববিদ্যালয়টির সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের সাময়িক বরখাস্ত প্রভাষক ফারহানা ইয়াসমিনের বিরুদ্ধে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ করেছে কমিটি।

এছাড়া ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীদের মানসিক উন্নয়নে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশও করেছে তদন্ত কমিটি। ভবিষ্যতে এমন ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঠেকাতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে তৎপর থাকার সুপারিশও করা হয়েছে।

এদিকে, রোববার শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনের স্থায়ী বহিষ্কার দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো অনশন করেন শিক্ষার্থীরা। আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা জানান, শিক্ষক ফারহানা ইয়াসমিনের স্থায়ী বহিষ্কার না হওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাবেন তারা। শুক্রবার অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে সিন্ডিকেট সভায় কোনও সিদ্ধান্ত না হওয়ায় শনিবার আবারও অনশন শুরু করেন শিক্ষার্থীরা।

উল্লেখ্য, গত ২৬ সেপ্টেম্বর দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ও বাংলাদেশ অধ্যয়ন বিভাগের প্রথম বর্ষের ফাইনাল পরীক্ষার হলে প্রবেশের সময় ১৬ শিক্ষার্থীর চুল কেটে দেন বিভাগের চেয়ারম্যান ও সহকারী প্রক্টর ফারহানা ইয়াসমিন। অপমান সইতে না পেরে পরের দিন ২৭ সেপ্টেম্বর রাতে নাজমুল হাসান তুহিন নামে এক ছাত্র ঘুমের ওষুধ খেয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

এ ঘটনার প্রতিবাদে ২৮ সেপ্টেম্বর সকাল থেকে শিক্ষার্থীরা সব পরীক্ষা বর্জন করে একাডেমিক এবং প্রশাসনিক ভবনে তালা ঝুলিয়ে বিক্ষোভ করেন।

ঘটনার ২১ দিন পর গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত শিক্ষিকা ফারহানা ইয়াসমিন বাতেনের বক্তব্য ছাড়াই বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার সোহরাব আলীর কাছে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়।