প্রচ্ছদ > সিলেট শীর্ষ > ছাতকে ছেলেকে খুনের ছয় বছর পর বাবাকে মারলো ওরা!

ছাতকে ছেলেকে খুনের ছয় বছর পর বাবাকে মারলো ওরা!

সিলেট শীর্ষ সুনামগঞ্জ

সময়ের ডাক
ছাতকে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ছেলেকে খুনের ছয় বছর পর এবার বাবাকেও হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। প্রায় ৬ বছর আগে স্কুলছাত্র ছেলেকে হত্যা করেছিল তারা। ছেলে হত্যার ঘটনায় মামলা আপোস না করায় পিটিয়ে হত্যা করা হয় বাবাকে, এমনটাই দাবি করেছেন নিহতের অপর ছেলে। ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের বনগাঁও গ্রামে।

জানা যায়, বনগাঁও গ্রামের বাতির আলীর (৬০) সাথে একই গ্রামের সিরাজুল ইসলামের দীর্ঘদিন ধরে ভূমি সংক্রান্ত বিরোধ চলে আসছিল। গত (১১ অক্টোবর) সন্ধ্যায় স্থানীয় ইছামতি বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় সিরাজুল ইসলাম তার লোকজন লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে গুরুতর করে বাতির আলীকে।

প্রতিপক্ষের লোহার রডের আঘাতে বাতির আলীর দুটি পা ও হাতের হাড় ভেঙ্গে যায়। আশংকাজনক অবস্থায় তাকে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়।

প্রায় চার দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে (১৪ অক্টোবর) বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় বাতির আলীর মৃত্য ঘটে।

নিহতের ছেলে লাল মিয়া জানান, সিরাজুল ইসলামের লোকজন ২০১৫ সালের ২১ নভেম্বর সকালে তার ছোট ভাই হেলাল উদ্দিনকে (১৫) পিটিয়ে হত্যা করে। এ ঘটনায় তার বাবা বাতির আলী বাদী হয়ে ২১ জনকে আসামি করে ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলাটি বর্তমানে আদালতে বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে।

লাল মিয়া অভিযোগ করেন, ওই মামলা আপোসের জন্য প্রতিপক্ষ চাপ দিচ্ছিল। কিন্তু আপোস না করায় ক্ষুব্ধ আসামিরা তার বাবাকেও হত্যা করেছে। রাজনৈতিক দল পরিবর্তন করে সরকারী দলে প্রবেশ করে সিরাজুল ইসলাম বর্তমানে দাপটের সাথে একের পর এক অপরাধ করে যাচ্ছেন।

তবে সিরাজুল ইসলামের দাবি, তার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ বাতির আলীর ছেলেরা করেছেন, তা সঠিক নয়। এসবের সাথে তার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই।

ছাতক থানার অফিসার ইনচার্জ শেখ নাজিম উদ্দিন জানান, বাতির আলী হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এ বিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।