সিলেটে ১৩ লক্ষ টাকার ভারতীয় পণ্যসহ চোরাকারবারি গ্রেফতার

সময়ের ডাক:সিলেটের জৈন্তাপুরে অভিযান চালিয়ে চোরাচালানের মাধ্যমে আসা পিকাপ ভর্তি ভারতীয় কাপড়সহ এক চোরাকারবারি-কে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি)।

পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন পিপিএম এর নির্দেশে মঙ্গলবার (১৬ মার্চ) রাত অনুমান এগার ঘটিকার সময় জেলা গোয়েন্দা শাখা (উত্তর)-এর অফিসার ইনচার্জ সাইফুল আলম-এর নেতৃত্বে ডিবি পুলিশের একটি বিশেষ টিম গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জৈন্তাপুর থানাধীন লালাখাল সীমান্তবর্তী বারগাতি এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে একটি ডিআই পিকাপ আটক পূর্বক তল্লাশী করে চোরাচালানের মাধ্যমে আসা ১৫ বস্তা প্লাস্টিকের বস্তায় শাড়ি কাপড়, ত্রি-পিছ, লেহেঙ্গা, শেরোয়ানীসহ বিভিন্ন ধরনের ভারতীয় কাপড় উদ্ধার করে। উদ্ধারকৃত চোরাচালানের আনুমানিক বাজার মূল্য ১৩ লক্ষ টাকা।

অভিযানের সময় চোরাকারবারের সাথে জড়িত পিকাপ চালক রাসেল আহমদ (২২) পুলিশ-কে বহনকারী মাইক্রোবাসকে ধাক্কা দিয়ে ঘটনাস্থলের পার্শ্ববর্তী পুকুর সাঁতার কেটে পালানোর চেষ্টা করে। ডিবি পুলিশের একাদিক সদস্য ঝুঁকি নিয়ে আসামীর পিচু নিয়ে পুকুরে নেমে তাকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃত রাসেল আহমদ (২২) জৈন্তাপুর থানাধীন হেমু হাউতপাড়া সাকিনের আছির উদ্দিনের ছেলে। অভিযানের সময় চোরাচালান চক্রের অপর দুই সদস্য পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃত রাসেলসহ একটি সংঘবদ্ধ চক্র বিভিন্ন সময় শুল্ক ফাঁকি দিয়ে সীমান্ত পথে অবৈধ ভাবে ভারতীয় কাপড়সহ বিভিন্ন পণ্য বাংলাদেশে এনে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে চড়া মূল্যে বিক্রি করে থাকে। এ ঘটনায় জেলা গোয়েন্দা শাখা (উত্তর) এর এসআই/সুজিত চক্রবর্তী বাদী হয়ে জৈন্তাপুর মডেল থানায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দায়ের করেছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর ও মিডিয়া) মো. লুৎফর রহমান জানান, পুলিশ সুপার মহোদয়ের নির্দেশে সীমান্ত এলাকায় চোরাচালান বন্ধে নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে আসছে ডিবি। গত এক মাসে কয়েকটি অভিযানে বিপুল পরিমান চোরাচালান পণ্য আটক করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার বিশেষ অভিযানে বিপুল পরিমান ভারতীয় বিভিন্ন আইটেমের কাপড়সহ একজন চোরাকারবাকি গ্রেফতার করেছে ডিবি। এ ঘটনায় পলাতক আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত আছে।