প্রচ্ছদ > জাতীয় > নারায়ণগঞ্জে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে প্রাণ হারালেন নবদম্পতি

নারায়ণগঞ্জে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে প্রাণ হারালেন নবদম্পতি

জাতীয়

সময়ের ডাক ডেস্ক:নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় প্রেমের সম্পর্ক গড়ে বিয়ের ২ মাস পর স্বামীর মৃত্যুর দুই ঘণ্টার ব্যবধানে মারা গেলেন স্ত্রী। বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দগ্ধ এ নবদম্পতি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার মারা যান।

নিহতরা হলেন- ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর বাহাদুরপুর গুপ্তেরগাঁও গ্রামের আবুল কালামের ছেলে মাহাবুল ইসলাম (২৪) এবং নেত্রকোনা জেলার মদন থানার হাসানপুর গ্রামের আ. আজিজের মেয়ে রনি আক্তার (২৩)। তারা সম্পর্কে স্বামী-স্ত্রী।

হাসপাতাল সূত্র জানায়, মাহাবুল ইসলামের ৯৫ ভাগ ও তার স্ত্রী রনি আক্তারের ৯০ ভাগ শরীর পুড়ে গিয়েছিল। বৃহস্পতিবার ভোর ৪টায় মাহাবুল ও সকাল ৬টায় রনি আক্তারের মৃত্যু হয়েছে।

নিহত মাহাবুল ইসলামের মামা আলিম উদ্দিন জানান, ফতুল্লার বিসিকে একটি গার্মেন্টসে কাজ করতে গিয়ে প্রেম ভালোবাসায় তারা দু’জনে দুই মাস আগে বিয়ে করেছেন। বিয়ের পর থেকে বিসিকেই অবস্থিত ওহাব মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন।

ওই বাড়িটি ১ লাখ ৩৩ হাজার ভোল্টের বিদ্যুতের তারের নিচে তিনতলা ভবন। এ বাড়ির ছাদে উঠলে যে কারো বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু হতে পারে বিষয়টি জেনেও বাড়ির মালিক কোনো ব্যবস্থা নেননি।

তিনি আরও জানান, ১৩ জানুয়ারি ওই বাড়ির ছাদে কাপড় শুকাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন রনি আক্তার। এ সময় মাহাবুল তাকে উদ্ধার করতে গিয়ে তিনি বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। তখন সংবাদ পেয়ে বিসিক ফায়ার স্টেশনের কর্মীরা গিয়ে তাদের দু’জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি আসলাম হোসেন জানান, হাসপাতাল থেকে থানায় মৃত্যুর সংবাদ জানানো হয়েছে। এ বিষয়ে যদি কেউ অভিযোগ করে তাহলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এলাকাবাসী জানান, ফতুল্লায় ১ লাখ ৩৩ হাজার ভোল্টের বিদ্যুতের তারের নিচে অসংখ্য বহুতল ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। এ বিষয়ে বিদ্যুৎ বিভাগ থেকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা না নেয়ায় প্রায় সময় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বিভিন্ন বয়সের লোকজন হতাহত হচ্ছে। সর্বস্ব হারাচ্ছে অনেক সাধারণ পরিবার।