প্রচ্ছদ > সিলেট প্রতিক্ষণ > মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে সিলেট বিশ্বনাথের মায়ের পরকীয়া প্রেমিক গ্রেফতার

মেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে সিলেট বিশ্বনাথের মায়ের পরকীয়া প্রেমিক গ্রেফতার

সিলেট প্রতিক্ষণ সিলেট শীর্ষ

সময়ের ডাক : মেয়েকে ধর্ষণ করার অভিযোগে সিলেটের বিশ্বনাথ থানা পুলিশ মায়ের পরকীয়া প্রেমিক আলম মিয়া (৩০)’কে গ্রেফতার করেছে। উপজেলার নতুন বাজারস্থ আছকির মিয়ার কলোনীতে গত সোমবার রাতে ধর্ষণের ঘটনাটি ঘটে। গ্রেফতাারকৃত আলম সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার মুকসেদপুর গ্রামের নূরুল ইসলামের পুত্র। তবে বর্তমানে সে বিশ্বনাথ উপজেলার জানাইয়া গ্রাম এলাকার লম্বা কলোনীতে বসবাস করছে।

বুধবার সকালে থানায় লিখিত অভিযোগ দায়েরের পর বিকেল ধর্ষক আলমকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

ধর্ষণের শিকার হওয়া এক কন্যা সন্তানের জননীও সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার পুরান লাউড়েরগড় গ্রামের বাসিন্দা। সে স্বামী পরিত্যক্তা। তবে তারা সবাই দীর্ঘদিন ধরে নতুন বাজারের আছকির মিয়ার কলোনীতে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করছেন।

ধর্ষিতা তার লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন, পুলিশের হাতে গ্রেফতারকৃত আলম মিয়া সাহায্য-সহযোগিতা করার সুবাধে প্রায়ই ধর্ষিতার স্বামী পরিত্যক্তা মায়ের বসতঘরে আসা-যাওয়া করত। ধর্ষিতার মা আলমকে নিজের স্বামী হিসেবে পরিচয় দিতো। ঘটনার ১০দিন পূর্বে ধর্ষিতা চট্টগ্রাম থেকে মায়ের বাসায় বেড়াতে আসেন আসি। কয়েক দিন পর ছোট ভাই-বোনকে নিয়ে তার মা নানার বাড়ি সুনামগঞ্জে যান। আর ওই ফাঁকে গত ৫ আগস্ট সোমবার রাত এগারোটার দিকে আলম তাকে (ধর্ষিতা) দোকান থেকে চা নিয়ে এসে খেতে দেয়। চা পান করে সে (ধর্ষিতা) অচেতন হয়ে পড়লে রাত আনুমানিক ২টার দিকে আলম তার অশ্লীল ভিডিও ধারণ ও তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। পরদিন মঙ্গলবার সকালে আশপাশের লোকজন ধর্ষিতাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করেন।

ধর্ষিতার মা সাংবাদিকদের বলেন, আলমের সাথে আমার বিয়ে হয়নি। তবে তার সাথে সম্পর্ক থাকায় সে প্রায় আমার ঘরে আসতো।

এক সন্তানের জননীকে ধর্ষনের অভিযোগে ধর্ষিতার মায়ের পরকীয়া প্রেমিক আলম মিয়াকে গ্রেফারের সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার এসআই মিজানুর রহমান বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে এব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।