প্রচ্ছদ > রাজনীতি > বরিশালে মহাসমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হবে: রিজভী

বরিশালে মহাসমাবেশ জনসমুদ্রে পরিণত হবে: রিজভী

রাজনীতি

সময়ের ডাক ডেস্ক:বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেছেন, ‘আজ বরিশালে আমাদের মহাসমাবেশ হবে। জনসমুদ্রে পরিণত হবে সমাবেশ। সমাবেশের অনুমতি নিয়ে টালবাহানা করছে পুলিশ প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রিজভী এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, বরিশালে এক সপ্তাহ ধরে অনিশ্চয়তায় রেখে গতকাল বুধবার শেষ মুহূর্তে পুলিশ ঈদগাহ মাঠে মহাসমাবেশের অনুমতি দিলেও বিভিন্ন এলাকায় বিএনপি নেতাকর্মীদের হয়রানি করা হচ্ছে। আমরা বরিশালের বেলস পার্কে সমাবেশের জন্য আবেদন করলেও অনুমতি দেওয়া হয়েছে ঈদগাহ মাঠে; যার পরিসর অত্যন্ত ছোট। এটা সরকারের রাজনৈতিক দেওলিয়াত্বেরই বহিঃপ্রকাশ।

সরকারের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, ‘প্রবাদ আছে, মিথ্যা বলা মহাপাপ। আর এখন বিদ্যমান পরিস্থিতিতে সত্য বলা মহাভয়। মিথ্যা বলা যদি কোনো ‘শিল্প’ হতো, তাহলে অনর্গল মিথ্যা বলা এই সরকারের মন্ত্রী-নেতারা হতেন সেই শিল্পের নায়ক-মহানায়ক। এরা তাদের রাজনৈতিক পাঠশালায় সত্য কথা বলার শিক্ষা অর্জন করেননি।’

খুন, গুম, হত্যা, ধর্ষণ মহামারি আকারে বেড়েই চলছে উল্লেখ করে বিএনপির এ নেতা বলেন, ‘দেশবাসীর গণতান্ত্রিক অধিকার হরণ করে উন্নয়নের নামে বর্তমান সরকার জনগণকে বিভ্রান্ত করছে। বাক ও ব্যক্তি স্বাধীনতা ভূলুণ্ঠিত। আইনের শাসন অনুপস্থিত। মানুষের জীবনের নিরাপত্তা নেই। দেশে এখন স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি নেই। ’

তিনি আরও বলেন, ‘গণতন্ত্রের চাইতে উন্নয়নকে প্রাধান্য দেওয়ার নামে সব সামাজিক চুক্তি ভঙ্গ করে জনগণকে শৃঙ্খলিত করেছে। জনগণের ভাগ্যের উন্নয়নের নামে চলছে বল্গাহীন লুণ্ঠন। …প্রকৃত বাস্তবতা হলো, এই উন্নয়ন হলো ক্ষমতাসীন দলের লোকজন আর তাদের সহযোগিতাকারীদের পকেটের উন্নয়ন। আর নিরন্ন মানুষের সংখ্যা বাড়ানোর উন্নয়ন।’

খালেদা জিয়াকে কারাবন্ধি করা হয়ে অভিযোগ এনে রিজভী বলেন, ক্ষমতা নিরুপদ্রব রাখতেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে কারারুদ্ধ রাখা হয়েছে গত দেড় বছর। গুরুতর অসুস্থ নেত্রীকে জামিনে বাধা দিচ্ছে সরকার।

তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার মুক্তি ও দ্রুত নতুন নির্বাচনের দাবিতে বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হবে বিএনপির বিভাগীয় মহাসমাবেশ। বিএনপি পর্যায়ক্রমে সব বিভাগে এই মহাসমাবেশ করার পরিকল্পনা নিয়েছে। এটা আমাদের আন্দোলনের একটি ধাপ।’