প্রচ্ছদ > সিলেট প্রতিক্ষণ > গোলাপগঞ্জে ধর্ষণ : প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ, তদন্ত কর্মকর্তা ক্লোজড

গোলাপগঞ্জে ধর্ষণ : প্রতিবাদে রাস্তা অবরোধ, তদন্ত কর্মকর্তা ক্লোজড

সিলেট প্রতিক্ষণ সিলেট শীর্ষ

গোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:সিলেটের গোলাপগঞ্জের ফুলবাড়ি ইউনিয়নের হিলালপুর চকপাড়ায় এক তরুণীকে (২০) অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত যুবক লক্ষীপাশা ইউনিয়নের বাউসি গ্রামের মুছব্বির আলীর পুত্র আলাল হোসেন (২৫)। তিনি সিএনজি অটোরিকশার চালক বলে জানা গেছে। আর ধর্ষণের শিকার তরুণী একটি এনজিওতে চাকরি করেন বলে জানা গেছে।

ঘটনার পর গতকাল শুক্রবার (১২ জুলাই) রাতে ভিকটিম নিজে বাদী হয়ে আলাল হোসেনকে প্রধান ও অজ্ঞাত আরো ২ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন (মামলা নং ১৮/১২-০৭-১৯ইং)।

এদিকে, এ ঘটনায় মামলা নিতে পুলিশের গড়িমসির অভিযোগ এনে ও অভিযুক্ত যুবককে এখনো গ্রেপ্তার না করায় আজ শনিবার (১৩ জুলাই) সকাল ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত এক ঘন্টা সিলেট-জকিগঞ্জ সড়ক অবরোধ করে রাখেন এলাকাবাসী। এ সময় সিলেটের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন ঘটনাস্থলে এসে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই তপন কুমারকে সাময়িক ক্লোজড ও অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেন এলাকাবাসী।

স্থানীয় ও ধর্ষিতার পরিবার সূত্রে জানা যায়, গত বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ওই তরুণীকে তার পরিবার খুঁজে না পেলে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় একটি সাধারণ (জিডি) ডায়েরি করা হয়। অভিযুক্ত যুবক আলাল হোসেনসহ আরো কয়েকজন যুবক তরুণীকে ধর্ষণ করে পরদিন শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে এই তাকে কোনাচর বাজারে ফেলে রেখে চলে যায়। পরে পরিবারের লোকজন তরুণীকে উদ্ধার করে গোলাপগঞ্জ মডেল থানায় নিয়ে যান।

ভিকটিমের এক আত্মীয় জানান, পুলিশ প্রথমে মামলা নিতে গড়িমসি করে। পরে মামলা নিলেও অভিযুক্ত আলাল হোসেনকে এখনো গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়নি। ভিকটিম আলাল হোসেনকে চিনতে পারলেও বাকিদের চিনতে পারেননি বলে জানান তিনি।

গোলাপগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান মামলা নিতে গড়িমসি ও অভিযুক্ত যুবককে গ্রেপ্তারে পুলিশের অবহেলার বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, ‘তরুণীকে থানায় নিয়ে এলে আমরা শুক্রবার রাতেই তাৎক্ষণিক মামলা রেকর্ড করি। অভিযুক্ত যুবক আলাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।’

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সাময়িক ক্লোজড এসআই তপন কুমার বলেন, ‘প্রথমে ওই তরুণীর পরিবার তার নিখোঁজ হওয়ার বিষয়ে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী করে। এর পরিপেক্ষিতে বৃহস্পতিবার রাতেই পুলিশ বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালায়। পরদিন শুক্রবারও বিভিন্ন স্থানে পুলিশ অভিযান চালায়। পুলিশের অভিযানের পরিপ্রেক্ষিতেই অভিযুক্ত যুবক তাকে রেখে পালিয়ে যায়।’