প্রচ্ছদ > সিলেট প্রতিক্ষণ > সিলেটে ছেলে হত্যায় মাসহ ২ জনের ফাঁসি

সিলেটে ছেলে হত্যায় মাসহ ২ জনের ফাঁসি

সিলেট প্রতিক্ষণ সিলেট শীর্ষ

 

সময়ের ডাক ডেস্ক:সিলেটের সুনামগঞ্জে নিজের শিশুপুত্রকে হত্যার দায়ে মা ও এক যুবককে ফাঁসির দণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত।মঙ্গলবার সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত দায়রা জজ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ আল মামুন এই রায় দেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন- জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার চিতুলিয়া গ্রামের সৌদিপ্রবাসী রফিকুল ইসলামের স্ত্রী সিতারা বেগম (৩৯) ও রফিকুলের চাচাতো ভাইয়ের ছেলে একই গ্রামের বারিক মিয়া (৩৭)।

রায়ে মৃত্যুদণ্ড ছাড়াও আসামি বারিক মিয়া ও সিতারা বেগমকে ২০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

রায় ঘোষণার সময় বারিক মিয়া আদালতে উপস্থিত ছিলেন। আর সিতারা বেগম পলাতক আছেন।

মামলার নথি সূত্রে জানা গেছে, সৌদিপ্রবাসী রফিকুল ইসলামের স্ত্রী সিতারা বেগম স্বামীর চাচাতো ভাইয়ের ছেলে বারিক মিয়ার সঙ্গে পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তাদের দুজনকে আপত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলে সিতারার শিশুপুত্র শোয়াইবুর রহমান (১১)। সে তার বাবাকে ঘটনা জানাবে বলে মাকে হুমকি দেয়। পরে মা সিতারা বেগম ও বারিক মিয়া মিলে শিশু শোয়াইবুরকে হত্যার পরিকল্পনা করেন।

২০১২ সালের ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যা ৭টার দিকে গ্রামের আরেক শিশু শাবুল মিয়ার (১৩) মাধ্যমে শোয়াইবুরকে গ্রামের চিতুলিয়া হাফিজিয়া মাদ্রাসায় নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর বারিক মিয়া শিশু শোয়াইবুরকে মাদ্রাসার শৌচাগারের কাছে নিয়ে শ্বাসরোধে হত্যা করে লাশ শৌচাগারের ট্যাংকিতে ফেলে দেন। পরে স্থানীয় লোকজন সন্দেহবশতঃ শিশু শাবুল মিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে সে ঘটনার কথা স্বীকার করে।

পরে পুলিশ বারিক মিয়া, নিহত শিশুটির মা সিতারা বেগম ও শিশু শাবুল মিয়াকে আটক করে। ঘটনার পরদিন নিহত শোয়াইবুরের চাচাতো ভাই হামজা মিয়া বাদী হয়ে এই তিনজনকে আসামি করে জগন্নাথপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন।

পুলিশ ঘটনার তদন্ত শেষে ২০১৩ সালের ১৫ মার্চ বারিক মিয়া, নিহত শিশুর মা সিতারা বেগম ও শাবুল মিয়ার বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। এরপর ৯ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণসহ মামলার দীর্ঘ শুনানি শেষে মঙ্গলবার আদালত চাঞ্চল্যকর এ মামলার রায় দেন।

এ ছাড়া অপর আসামি শাবুল মিয়া শিশু হওয়ায় তার বিচার শিশু আদালতে বিচারাধীন আছে।

মামলায় বাদী ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অতিরিক্ত পিপি অ্যাডভোকেট ছইল হোসেন সুহেল মিয়া মামলার রায়ের বিষয়টি যুগান্তরকে নিশ্চিত করেছেন।