প্রচ্ছদ > জাতীয় > পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের ‘উভয় সংকট’

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেনের ‘উভয় সংকট’

জাতীয় রাজনীতি

সময়ের ডাক: উভয় সংকটে পড়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন। ঐতিহ্যবাহী আবুসিনা ছাত্রাবাস নিয়ে আন্দোলন সংগ্রামের কারণেই তার এই সংকট। এই ভবনটি সংরক্ষণের জন্য চলমান আন্দোলনের অংশ হিসাবে শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন একটি নাগরিক প্রতিনিধিদল।

নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে সকাল ৯টায় শত নাগরিকের প্রতিনিধি দল সাক্ষাৎ করতে যান। এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, আপনাদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে এই ভবন সংরক্ষণের জন্য সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত উদ্যোগ নিতে বলেছেন। কিন্তু বিষয়টি জটিল । বিকল্প জায়গার ব্যবস্থা করার পাশাপাশি ২৫০ শয্যার হাসপাতাল নির্মাণের প্রকল্পটি মেয়াদের মধ্যেই শেষ করতে হবে ।

তিনি আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের জন্য উভয় সংকটে পড়েছি । হেরিটেজ রক্ষা জরুরী, আবার হাসপাতালও দ্রুত নির্মাণ করা দরকার ।

প্রতিনিধিদল প্রাচীন স্থাপত্য আবু সিনা ভবন রক্ষার পাশাপাশি তা সিলেট বিভাগীয় যাদুঘর ঘোষণা ও ২৫০ শয্যার হাসপাতাল একটি যৌক্তিক স্থানে নির্মাণের জন্য মন্ত্রীকে উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানান ।

মন্ত্রীর সাথে এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ ও সিলেট মহানগর যুবলীগ সভাপতি আলম খান মুক্তি ।

আন্দোলনকারীদের পক্ষে প্রতিনিধি দলে ছিলেন, ভাষা সৈনিক মতিন উদ্দিন যাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ডা. মোস্তফা শাহজামান বাহার চৌধুরী, বাংলাদেশ জাসদ কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট জাকির আহমদ, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এডভোকেট গোলাম সোবহান চৌধুরী, সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের শিক্ষক স্থপতি কৌশিক সাহা প্রমুখ ।: উভয় সংকটে পড়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেন। ঐতিহ্যবাহী আবুসিনা ছাত্রাবাস নিয়ে আন্দোলন সংগ্রামের কারণেই তার এই সংকট। এই ভবনটি সংরক্ষণের জন্য চলমান আন্দোলনের অংশ হিসাবে শনিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রী ড. একে আব্দুল মোমেনের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন একটি নাগরিক প্রতিনিধিদল।

নগরীর হাফিজ কমপ্লেক্সে সকাল ৯টায় শত নাগরিকের প্রতিনিধি দল সাক্ষাৎ করতে যান। এসময় পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, আপনাদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে এই ভবন সংরক্ষণের জন্য সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত উদ্যোগ নিতে বলেছেন। কিন্তু বিষয়টি জটিল । বিকল্প জায়গার ব্যবস্থা করার পাশাপাশি ২৫০ শয্যার হাসপাতাল নির্মাণের প্রকল্পটি মেয়াদের মধ্যেই শেষ করতে হবে ।

তিনি আন্দোলনকারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনাদের জন্য উভয় সংকটে পড়েছি । হেরিটেজ রক্ষা জরুরী, আবার হাসপাতালও দ্রুত নির্মাণ করা দরকার ।

প্রতিনিধিদল প্রাচীন স্থাপত্য আবু সিনা ভবন রক্ষার পাশাপাশি তা সিলেট বিভাগীয় যাদুঘর ঘোষণা ও ২৫০ শয্যার হাসপাতাল একটি যৌক্তিক স্থানে নির্মাণের জন্য মন্ত্রীকে উদ্যোগ গ্রহণের অনুরোধ জানান ।

মন্ত্রীর সাথে এসময় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সিলেট সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ ও সিলেট মহানগর যুবলীগ সভাপতি আলম খান মুক্তি ।

আন্দোলনকারীদের পক্ষে প্রতিনিধি দলে ছিলেন, ভাষা সৈনিক মতিন উদ্দিন যাদুঘরের প্রতিষ্ঠাতা ডা. মোস্তফা শাহজামান বাহার চৌধুরী, বাংলাদেশ জাসদ কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট জাকির আহমদ, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) সিলেট শাখার সাধারণ সম্পাদক আব্দুল করিম কিম, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগ সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এডভোকেট গোলাম সোবহান চৌধুরী, সম্মিলিত নাট্য পরিষদ সিলেটের সাধারণ সম্পাদক রজত কান্তি গুপ্ত, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের শিক্ষক স্থপতি কৌশিক সাহা প্রমুখ ।