প্রচ্ছদ > রাজনীতি > স্বৈরাচার দীর্ঘায়িত হলে নাৎসিবাদের উত্তরণ ঘটে: রিজভী

স্বৈরাচার দীর্ঘায়িত হলে নাৎসিবাদের উত্তরণ ঘটে: রিজভী

রাজনীতি শীর্ষ সংবাদ

সময়ের ডাক ডেস্ক:স্বৈরাচার দীর্ঘায়িত হলে নাৎসিবাদের উত্তরণ ঘটে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

রিজভী বলেন, স্বৈরাচার দীর্ঘায়িত হলে নাৎসিবাদের উত্তরণ ঘটে। আর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ নাৎসিবাদের উপাসক।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, বর্তমান অবৈধ সরকার গত এক দশকের বেশি সময় ধরে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে। শেখ হাসিনার চোখে চিরকালীন প্রধানমন্ত্রী থাকার স্বপ্ন। ক্ষমতার পৌষ মাস যাতে কোনো দিনই শেষ না হয়, সেই নীতি অবলম্বন করেই দেশ চালাচ্ছেন তিনি।

‘সে জন্য নিজেদের ক্ষমতাকে টিকিয়ে রাখার জন্য বিরোধী দল ও মতকে দমন করতে এমন কোনো বর্বর ও নির্দয় পন্থা নেই যা করছেন না। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কোনো সংগঠন প্রকাশ্যে কিংবা তাদের গোপন সংস্থাগুলোর মাধ্যমে এই গুম-খুন করা হচ্ছে।’

বিএনপির এ নেতা আরও বলেন, কোনো মানুষেরই জীবনের নিরাপত্তা নেই। ঘর থেকে বেরোলে তিনি আবার ঘরে ফিরতে পারবেন কিনা তার কোনো গ্যারান্টি নেই। কারণ সরকারের গোপন সংস্থার লোকজন ওঁৎ পেতে আছে।

তিনি বলেন, খবরের কাগজ খুললেই গুম, ক্রসফায়ার বা বেওয়ারিশ লাশের খবর সেন্সরশিপের পরও প্রায় প্রতিদিনই গণমাধ্যমে আসছে। আর এসব খবরে জাতি আতঙ্কিত ও স্তম্ভিত।
আর এসব সত্য প্রকাশের কারণে চ্যানেল ওয়ান, দিগন্ত টিভি, ইসলামী টিভি, পিস টিভি এবং আমার দেশসহ বহু প্রিন্ট মিডিয়া সরকার বন্ধ করে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন রিজভী।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, বিএনপি ও সরকার বিরোধী অসংখ্য নেতাকর্মীকে এখনও গুম করে রাখা হয়েছে। দেশটিকে এখন শেখ হাসিনা ‘গুমরাজ্য’ বানিয়েছেন। ‘গুমঘর’ থেকে কেউ কেউ সৌভাগ্যক্রমে ফিরে এলেও অনেকের স্ত্রী-সন্তান-মা-বাবা-স্বজনরা দিনরাত চোখের পানিতে বুক ভাসাচ্ছেন।

‘গুম হওয়ার ১৫ মাস পর ফিরে এসেছেন সাবেক কূটনীতিক মারুফ জামান। ইলিয়াস আলী, চৌধুরী আলম, সাইফুল ইসলাম হিরু, হুমায়ন কবীর পারভেজ, সাজেদুল ইসলাম, মাহবুব হাসান, মাজহারুল ইসলাম, আদনান চৌধুরী, পারভেজ হোসেনসহ প্রায় হাজারখানেক মানুষকে গুম করা হয়েছে। এখনও নিরুদ্দেশ হয়ে আছেন ব্রিগেডিয়ার আবদুল্লাহিল আমান আজমী, ব্যারিস্টার আহমদ বিন কাশেম (আরমান)।’