প্রচ্ছদ > শীর্ষ সংবাদ > আমার মৃত্যুর জন্য সিসিক মেয়র আরিফ দায়ী : সঞ্জয় রায়

আমার মৃত্যুর জন্য সিসিক মেয়র আরিফ দায়ী : সঞ্জয় রায়

শীর্ষ সংবাদ সিলেট প্রতিক্ষণ

সময়ের ডাক : সিলেট সিটি করর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ তুলে প্রদীপ্ত সিলেটবাসীর ব্যানারে ভোক্তভোগীদের নিয়ে মানববন্ধন করেছেন আমার এমপি ডটকম’র ফাউন্ডার চেয়ারম্যান সুশান্ত দাস গুপ্ত। নিজেকে একজন সমাজকর্মী দাবী করে সুশান্ত দাস গুপ্ত ভোক্তভোগী সম্পাতপা এন্টারপ্রাইজের প্রোপাইটার সঞ্জয় রায়ের নিবেদনের প্রেক্ষিতে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে এগারোটার দিকে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মানববন্ধন করেন।

মানববন্ধনে ভোক্তভোগী সঞ্জয় রায় আরিফের বিরুদ্ধে বক্তব্য রেখে তার দুটি দাবী মেনে নিতে প্রশাসনসহ কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানান। শীঘ্রই তার দাবী মানা না হলে তিনি নগরবাসীর সামনে শহীদ মিনারের সামনে আত্মহূতি দেবেন বলে জানান।

মানববন্ধনে সঞ্জয় রায় (৪০) জানান, ২০১৪ সালে সিলেট সিটি কর্পোরেশন ভবন নির্মাণের জন্য ১৬ কোটি ৮ লক্ষ টাকা মূল্যে মাহবুব ব্রাদার্সকে ওয়ার্ক অর্ডার দেউয়া হয়। কাজটি সম্পাদনের জন্য মাহবুব ব্রাদার্স আমার সম্পাতপা এন্টারপ্রাইজের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়। কাজ শুরুর পর থেকে আমি নিয়মত কাজ করে আসছিলাম এবং ঠিকঠাকমতো বিল ইস্যু করে চেকের মাধ্যমে লেনদেন করে আসছিলাম। সম্পূরণ কাজের মাত্র ৫ শতাংস বাকী থাকতে আমি চিকিৎসার জন্য ভারতে চলে যাই। এসময় আরিফুল হক চৌধুরী মাহবুব ব্রাদার্সকে জিম্মি করে ২ কোটি ছেষট্টি লক্ষ টাকা আমাকে অগোচরে রেখে আত্মসাৎ করেন।

তিনি জানান, ঘটনার ২ বছর অতিবাহিত হওয়ার পর কাজের জন্য রক্ষিত জামানতের ১ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা মেয়র আরিফ ভয়ভীতি দেখিয়ে তিনি তার সহযোগী তোফায়েল খানের একটি ব্যাংক একাউন্টে নিয়ে আসেন। জামানতের এই চেকের ঘটনার স্বাক্ষী হিসেবে তিনি ১৫নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর ছয়ফুল আমিন বাকের উপস্থিত ছিলেন বলে জানান।

সঞ্জয় রায় দাবী করেন, তিনি আরিফের কাছে বকেয়া বিল এবং জামানতের টাকা ফেরত চাইতে গেলে মেয়র আরিফ তাকে প্রাণে মেরে ফেলার ভয় দেখিয়ে একটি ঘরে আটক রেখে ব্লাংক চেকে স্বাক্ষর নেন। মেয়র আরিফ তাকে হুমকি দিয়ে বলেন, যদি কোনদিন টাকার দাবী করেন তবে তাকে ব্লাংক চেক দিয়ে মামলায় ফাসিয়ে দিবেন।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় মানববন্ধন শুরুর পূর্বে মেয়র আরিফের বিরুদ্ধে দূর্নীতির অভিযোগ এনে সিলেট জেলা প্রশাসক কার্যালয় ও সিলেট দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) অফিসে স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়।