বিশ্বনাথে শিশু অপহরণকারী সন্দেহে জনতার হাতে যুবক আটক

সময়ের ডাক: সিলেটের বিশ্বনাথে শিশুকন্যা অপহরণকারী সন্দেহে নাজিম উদ্দিন (২২) নামে একজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে জনতা। সে হবিগঞ্জ জেলার ফতেহগাজী গ্রামের মৃত আবদুল আলীর পুত্র। সোমবার দুপুরে বিশ^নাথ উপজেলার মিয়াজানেরগাঁও গ্রামের রাস্তায় ঘটনাটি ঘটে। নাজিমের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া শিশুকন্যা শাহেনা বেগম (৯) উপজেলার ছত্রিশ নোয়াগাঁও গ্রামের মৃত আবদুস সোবহানের মেয়ে।
স্থানীয়রা জানান, উপজেলার ছত্রিশ নোয়াগাঁও গ্রামের আবদুস সোবহান মারা যাওয়ার পর তার মেয়ে শাহেনা মায়ের সাথে মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলার পথেরগাঁও গ্রামে বসবাস করত। কিন্তু মা অন্ধ হওয়ায় প্রায় দুইমাস পূর্বে তাকে ফের পিত্রালয় নোয়াগাঁওয়ে নিয়ে আসা হয়। এখানে থেকেই স’ানীয় মিয়াজানেরগাঁও প্রাথমিক বিদ্যালয়ে (ভর্তি ছাড়াই) পড়ালেখা করছে। সোমবার দুপুর দেড়টার দিকে টিফিনের ফাঁকে বাড়িতে এসে বিদ্যালয়ে ফেরার পথে শাহেনাকে অপহরণ করা হয়েছে-এমন খবর মুর্হুতের মধ্যে এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে। এসময় স্থানীয় দুটি মসজিদেও মাইকিং করা হয়। পরে স্থানীয় জনতা ধাওয়া করে নাজিম উদ্দিন নামের যুবককে আটক ও তার কাছ থেকে শাহেনাকে উদ্ধার করেন। বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করা হলে তারা নাজিমকে থানায় নিয়ে আসে। স্থানীয়রা আরও জানান, নাজিম মিয়াজানেরগাঁও গ্রামের ফারুক মিয়ার বাড়িতে কেয়ারটেকারের দায়িত্বে ছিল অনেকদিন। গত দুই বছর পূর্বে সে ওই বাড়ি থেকে চলে যায়।
শিশু কন্যা শাহেনা বেগম জানায়, বিদ্যালয়ে যাওয়ার পথে ওই ব্যক্তির সঙ্গে দেখা হয়। তবে তাকে আমি চিনিনা। এসময় ওই ব্যক্তি আমাকে আমার মায়ের কাছে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে। আমি তার সঙ্গে যেতে অপারগতা জানালে, সে আমাকে জোরপূর্বক নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে।
আটক নিজাম উদ্দিন অপহরণের অভিযোগটি সঠিক নয় দাবী করে জানায়, শিশুটির মা-ই তাকে নিয়ে যেতে বলেছিল।
থানার ওসি শামসুদ্দোহা পিপিএম বলেন আটককৃত ব্যক্তি বলেছে, শাহেনা বেগমের মা তার মেয়েকে নেয়ার জন্য পাঠিয়েছে। সেটি সঠিক কিনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।