প্রচ্ছদ > রাজনীতি > তারেক রহমানের মতো মানুষ বিশ্বে খুঁজে পাওয়া যাবে না: নজরুল

তারেক রহমানের মতো মানুষ বিশ্বে খুঁজে পাওয়া যাবে না: নজরুল

রাজনীতি

সময়ের ডাক ডেস্ক : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের মতো এমন মানুষ বিশ্বে খুঁজে পাওয়া যাবে না। যার বাবা সাবেক প্রেসিডেন্ট আর মা তিনবারের প্রধানমন্ত্রী।

শনিবার ঢাকা রিপোর্টার ইউনিটিতে খালেদা জিয়ার মুক্তি, তারেক রহমানের ‘ফরমায়েসী ও প্রতিহিংসামূলক’ সাজা বাতিল এবং হাবিব-উন-নবী খান সোহেলের মুক্তির দাবিতে জাতীয়তাবাদী ফোরাম আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এ কথা বলেন।

তারেক রহমান প্রসঙ্গে নজরুল ইসলাম খান বলেন, এরকম একজন ভাগ্যের অধিকারী মানুষের কোনো কিছু না হলেও তো তাকে মানুষ সম্মান করতো শহীদ জিয়ার পুত্র হিসেবে, খালেদা জিয়ার পুত্র হিসেবে। মানুষের সম্মান নিয়ে সুখে শান্তিতে বসবাস করতে পারতেন। কিন্তু তারা এটা করেননি। করেননি আমাদের জন্য। জনগণের জন্য। দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্য।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে বিএনপির এই নেতা বলেন, আমি বিশ্বাস করি, আপনারা আগামী দিনে গণতন্ত্রের জন্য শক্তিশালী লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত হবেন। ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে আমরা এদেশে মহান মুক্তিযুদ্ধের মূল চেতনা গণতন্ত্রকে পুনঃপ্রতিষ্ঠা করব।

নজরুল ইসলাম বলেন, আজকে ভাবতে খুব কষ্ট হয় যে, স্বাধীনতার ৪৮ বছর পর আজ পর্যন্ত আমাদের এসব বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে হয়। আমরা আজ পর্যন্ত ঠিক করতে পারলাম না নির্বাচনকালীন সরকার কেমন হবে। আজ পর্যন্ত আমরা একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশে জীবনযাপনের পন্থা বাহির করত পারলাম না।

একুশে আগস্ট গ্রেনেড হামলার রায়ের পর বিএনপির নিবন্ধন থাকা উচিত নয় বলে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ২১ আগস্টের সময় বিএনপি ক্ষমতায় থাকায় সন্ত্রাসী দল হিসেবে বিএনপির যদি নিবন্ধন বাতিল হয় তাহলে বোমা হামলা শুরু হয়েছিল আওয়ামী লীগের সময়। তাদের সময় উদীচীর অনুষ্ঠানে রমনায় বোমা হামলা হয়েছিল।

বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা ও তাদের আটকের সমালোচনা করে নজরুল বলেন, কেউ বলে তার (সোহেল) বিরুদ্ধে ৪০০ মামলা, কেউ বলে ৬০০ মামলা। মামলা কোনো ইয়ার্কির বিষয় নাকি। মানে ইচ্ছা হল আর মামলা করে দিলেন। ইয়ার্কির বিষয় না হলে একজন মানুষের নামে সাড়ে ছয়শ মামলা হল কীভাবে? কোনো লোকের বিরুদ্ধে যদি কোনো ফ্যাক্ট ছাড়াই মামলা করা যায়। তদন্ত করে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা যায়। তাহলে আর মামলা করতে অসুবিধা কোথায়।

তিনি বলেন, পুলিশ এসব গায়েবী মামলা করছে। আর সরকার তাতে উৎসাহ দিচ্ছে। যে কারণে এখন মামলা নিয়ে ইয়ার্কি করার সুযোগ পাচ্ছে। এই সরকারের দেয়া মামলার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার একটাই মাত্র সম্ভাবনা আছে। সেটা হল আন্দোলন। সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠে নামতে হবে। এই সরকারের পতন ঘটাতে হবে।

বিএনপি নেতা বলেন, কতো স্বৈরাচার, কতো ফ্যাসিস্ট সরকার এই দুনিয়াতে এসেছে। তারা যদি এই রকম অত্যাচার, নির্যাতন করে টিকে যেতে পারত, তাহলে কখনো কোথাও আর গণতন্ত্র ফিরে আসত না। ইতিহাস বলে স্বৈরাচারী সরকার যতো ক্ষমতাবানই হোক তাকে জনগণের সামনে নত হতে হয়, পরাজিত হতে হয়। এই সরকারেরও পরাজয় অবশ্যম্ভাবী।

আয়োজক সংগঠনের আহ্বায়ক আত্তারুজ্জামান বাচ্চুর সভাপতিত্বে প্রতিবাদ সভায় বিএনপির ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা সুলতানা আহমেদ, তাঁতীদলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি জাহাঙ্গীর আলম মিন্টু, জিয়া নাগরিক ফোরামের সভাপতি মিয়া মো. আনোয়ার প্রমুখ বক্তব্য দেন।