প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকার পুনরায় অনশন

বীরগঞ্জ দিনাজপুর প্রতিনিধি- দিনাজপুরের বীরগঞ্জে গোপন বিবাহ মেনে নেওয়া ও সংসারের দাবীতে প্রেমিকের বাড়ীতে প্রেমিকার পুনরায় অনশন করেছে।
বীরগঞ্জে পৌরশহরের ৪নং ওয়ার্ড কুমারপাড়া (আরিফ বাজার) এর বাসিন্দা সুরঞ্জিত চন্দ্র রায়েরে অর্নাস (পদার্থ বিজ্ঞান) পুড়ুয়া কন্যা মানষী রানী রায় ৭নং ওয়ার্ড নুতনপাড়া মহল্লার বাসিন্দা বিসিআইসি রাসায়ানিক সার ডিলার হেম চন্দ্র দাসের পুত্র প্রেমিক হরিত্বিক দাস ডেবিট (২৫)’র সাথে বিবাহ মেনে নেওয়ার দাবিতে হেম চন্দ্র দাসের বাড়ীতে ৬ অক্টোবর সন্ধ্যা হতে প্রেমিকা পুনরায় অনশন শুরু করছে।
উল্লেক্ষ, ৩০ সেপ্টেম্বর সকালে প্রেমিক হরিত্বিক দাস (২৫)’র বাড়ীতে মানষী রানী রায় গোপন বিবাহ মেনে নেওয়া ও সংসারের দাবীতে প্রেমিক হরিত্বিক দাস ডেবিট এর বাড়ীতে প্রেমিকা মানষী জানান, মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ডেবিটের সাথে তার এক/দেড় বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক। পরবর্তীতে বিবাহের চাপ দিলে ডেবিট খাসনসামা উপজেলার সেনপাড়া গ্রামে ১বন্ধুর বাড়ীড়ে নিয়ে গিয়ে গত ২৩ আগষ্ট/২০১৭ইং তারিখে আনুষ্ঠানিক বিবাহ করেছে। বিবাহের পর কুমিলস্নায় ডেবিট এর কর্মস্থলে তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সংসার করে।
সাংবাদ পেয়ে ৩০ সেপ্টেম্বর বীরগঞ্জ থানার ওসি তদন্ত বিশ্বনাথ দাশ গুপ্ত, এসআই লতিফ ঐ বাড়ীতে গেলে পৌর আওয়ামীলীগ সভাপতি মোশাররফ হোসেন বাবুল, পৌর আওয়ামীলীগ ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক রতন ঘোস পিযুষ, স্থানীয় ৭নং ওয়ার্ড পৌর কাউন্সিলর বনমালী রায়, সাবেক পৌর কাউন্সিলর কার্তিক ব্যানার্জী সহ শত শত উৎসুক জনতার সামনে হেম চন্দ্র দাস ও তার স্ত্রী কাগজে কলমে ৭ জনকে স্বাক্ষি রেখে ৭ দিনের মধ্যে সমাধানের আশ্বাস দিলে সকলের অনুরোধে প্রেমিকা মানষী নিজ বাড়ীতে ফিরে যায়। কিন্তু হেম চন্দ্র দাস কোন সুষ্ঠ সমাধান না করায় ৬ অক্টোবর সন্ধ্যা হতে প্রেমিকা পুনরায় অনশন শুরু করছে।
এ সময় প্রেমিকা মানষী জানায়, বিবাহ মেনে না নেওয়া পর্যমত্ম আমি এই বাড়িতেই থাকবো অন্যথায় আত্মহত্যা ছাড়া অন্য কোন পথ খোলা থাকবে না। এ রিপোট লেখা পযন্ত প্রেমীকা ঐ বাড়ীতেই আস্থান করছে।