দুই জোটের পাঁচ দফার রূপরেখা চূড়ান্ত

সময়ের ডাক ডেস্ক:নির্বাচনের আগে সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেয়াসহ অভিন্ন পাঁচ দফার দাবিতে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দুই জোট। ঐক্য প্রক্রিয়ার সাত দফা এবং যুক্তফ্রন্টের নয় দফা সমন্বয়ের মাধ্যমে পাঁচ দফার এ রূপরেখা চূড়ান্ত করা হয়েছে।আজ শনিবার বিকাল ৪টায় ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বাধীন ঐক্য প্রক্রিয়া এবং অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরীর নেতৃত্বাধীন যুক্তফ্রন্ট আনুষ্ঠানিকভাবে এ রূপরেখা ঘোষণা করবে।জানা গেছে, দুই জোটের অভিন্ন রূপরেখার শুরুতেই মহান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, প্রগতিশলী, সমাজ শক্তি এবং সুশীল সমাজকে নিয়ে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া পাঁচ দফার ভিত্তিতে জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার কথা বলা হয়েছে।

দফাগুলো হচ্ছে- নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন ও কমিশনের কাজে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপ না করা, তাদের স্বাধীনভাবে কাজ করতে দেয়া। নির্বাচনে সব দলের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা, অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ এবং গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের সব রকম উদ্যোগ গ্রহণ। নির্বাচনের কমপক্ষে এক মাস আগে থেকে সেনাবাহিনী মোতায়েন, তাদের ম্যাজিস্ট্রেসি ক্ষমতা দেয়া, নির্বাচন-পরবর্তী আরও দশ দিন পর্যন্ত সেনাবাহিনী মোতায়েন রাখা।

নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে দেশ পরিচালনার জন্য তৈরি করা নয় দফার অভিন্ন রূপরেখায় ক্ষমতার ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার কথা বলেছে ঐক্য প্রক্রিয়া এবং যুক্তফ্রন্ট। নির্বাচনে জয়ী হয়ে কেউ যাতে বর্তমান বা আগের সরকারের মতো স্বেচ্ছাচারী হতে না পারে সে জন্য প্রয়োজনীয় সংস্কার নিশ্চিত করা, রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী এবং সংসদ- এই তিনের মধ্যে ক্ষমতার ভারসাম্য প্রতিষ্ঠার কথা বলা হয়েছে।

শুক্রবার তোপখানায় নাগরিক ঐক্যের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দিনভর বৈঠকে অভিন্ন এই রূপরেখা চূড়ান্ত করা হয়। জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন, গণফোরামের আ ও ম শফিক উল্লাহ, বিকল্পধারা বাংলাদেশের ব্যারিস্টার ওমর ফারুক এবং নাগরিক ঐক্যের ডা. জাহিদুর রহমান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় সব দলের অংশগ্রহণে দেশে একটি অবাধ, সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন আদায়ে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলার ওপর জোর দেয়া হয়। এ লক্ষ্যে অভিন্ন পাঁচ দফা ছাড়াও নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করলে দেশ পরিচালনায় নয় দফার আলাদা একটি রূপরেখা তৈরি করেন দুই জোটের নেতারা।

এদিকে আগামী ১৮ সেপ্টেম্বর খুলনার হাসিদ পার্কে জনসভার আয়োজন করেছে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জেএসডি। এ জনসভায় যোগ দেবেন অধ্যাপক ডা. একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী, ড. কামাল হোসেন, আসম আবদুর রব এবং মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ নাগরিক ঐক্য এবং যুক্তফ্রন্টের শীর্ষ নেতারা।

পর্যায়ক্রমে তারা অন্যান্য বিভাগীয় শহরেও ঐক্যবদ্ধভাবে জনসভার আয়োজন করবেন বলে জনিয়েছেন জেএসডির সাধারণ সম্পাদক আবদুল মালেক রতন। এছাড়া তারা আগামী ২২ সেপ্টেম্বর গুলিস্তানে মহানগর নাট্য মঞ্চে অনুষ্ঠিতব্য ঐক্য প্রক্রিয়ার নাগরিক সমাবেশে অংশ নেবেন।