কমিটি বাতিলের দাবিতে কোম্পানীগঞ্জ যুবলীগের স্মারকলিপি

সময়ের ডাক: শোকের মাস আগস্টে দলীয় গঠনতন্ত্রের বিরুদ্ধে কোম্পানীগঞ্জের ৬টি ইউনিয়নে যুবলীগের কমিটি দেওয়ায় উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের আহ্বায়ক ও যুগ্ম আহ্বায়ককে অবাঞ্চিত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যান বরাবরে একটি স্মারকলিপি প্রদান করেছেন আহ্বায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দ।

শনিবার (২৫ আগস্ট) কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক কমিটির ১৩ সদস্য বিশিষ্ট স্বাক্ষরিত এক পত্রে এ স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। স্বারকলিপিতে যুবলীগের আহ্বায়ক হাজী আলা উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুর রহমান ও রাসেলকে অব্যাহতি দান ও ৬ ইউনিয়ন যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার দাবি জানানো হয়।

স্মারকলিপিতে উল্লেখ করা হয়, গেল বছরের ১৮ জুলাই কেন্দ্রীয় যুবলীগের চেয়ারম্যান ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত এক পত্রে কোম্পানীগঞ্জে ২১ সদস্য বিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটি ঘোষনা করা হয়। কমিটি ঘোষণার পর থেকে নেতৃবৃন্দ উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে কর্মী সম্মেলন করেন। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ও দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ, তরুণ, মেধাবী ও রাজপথের অকুতোভয় সৈনিকদের নিয়ে প্রতিটি ইউনিয়নের যুবলীগের কমিটি ঘোষনা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। কিন্তু যুবলীগের আহ্বায়ক হাজী আলা উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুর রহমান ও রাসেল অন্যান্য নেতৃবৃন্দের না জানিয়ে অযোগ্য, অদক্ষ ও স্বাধীনতা বিরোধীদের নিয়ে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে ৬ ইউনিয়নের কমিটি প্রদান করেন তারা। এ নিয়ে উপজেলা যুবলীগের অন্যান্য সকল নেতৃবৃন্দের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। নেতৃবৃন্দের মধ্যে চরম অসন্তুষ দেখা দিয়েছে।

তাই উপজেলা যুবলীগের সকল নেতৃবৃন্দ আহ্বায়ক আলা উদ্দিন, যুগ্ম আহ্বায়ক আব্দুর রহমান ও রাসেলকে অব্যাহতি দান ও ৬ ইউনিয়নের কমিটি বাতিলের দাবিতে এ স্মারকলিপি প্রদান করেন।

স্মারকলিপির অনুলিপি তারা সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক, সিলেট-৪ আসনের সংসদ সদস্য, যুবলীগের সিলেট বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক, জেলা যুবলীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক বরাবর প্রদান করেন।