সুইডেনেরকে হারিয়ে ২৮ বছর পর সেমির মুখ দেখলো ইংল্যান্ড 

স্পোর্টস ডেস্ক::সুইডেনের জালে দুটি গোল করে দীর্ঘ ২৮ বছর পর সেমিফাইনালে উঠে গেছে গ্যারেথ সাউথগেটের দল। দুটি গোলই ছিল হেড দিয়ে।

সামারা এরিনায় কোয়ার্টার ফাইনালের তৃতীয় ম্যাচে বাংলাদেশ সময় রাত ৮টায় মুখোমুখি হয় ইংল্যান্ড-সুইডেন। প্রথম ১২ মিনিটে বলার মতো সুযোগ তৈরি করতে পারেনি কোনো দল। ১৩ মিনিটের মাথায় ইংলিশ গোলরক্ষককে চমকে দিতে বক্সের অনেক বাইরে থেকে শট নিয়েছিলেন ভিক্টর ক্লাসেন। তার ডান পায়ের দূরপাল্লার শটটি বারের একটু উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়।

১৯ মিনিটে রাহিম স্টার্লিং দারুণভাবে বল টেনে নিয়ে চলে যান একদম সুইডেনের বক্সের কাছাকাছি। শেষ মুহূর্তে তিনি এক ঝটকায় বলটা দিয়ে দেন দৌড়ে আসা হ্যারি কেইনকে। বক্সের একটু বাইরে মাঝ থেকে জোড়ালো শটও নিয়েছিলেন কেইন, একটুর জন্য সেটা বেরিয়ে যায় গোলপোস্টের ডানদিক দিয়ে।
এরপর আক্রমণের পর আক্রমণ করে গেছে ইংল্যান্ড। যার ফলও তারা পেয়ে যায় ৩০ মিনিটে। অ্যাশলে বল পেয়েছিলেন হ্যারি মাগুইরে। লাফিয়ে উঠে দুর্দান্ত এক হেডে পোস্টের বাম দিক দিয়ে সেটা জালে জড়িয়ে দেন লেস্টার সিটি ডিফেন্ডার।

প্রথমার্ধের ঠিক আগ মুহূর্তে ৪৪ মিনিটে নিশ্চিত একটি গোলের সুযোগ মিস করে বসেন রাহিম স্টার্লিং। বক্সের মধ্যে সুইডিশ গোলরক্ষক ওলসেনকে একা পেয়ে গিয়েছিলেন তিনি। সঙ্গে বক্সে ঢুকে গিয়েছিলেন আরও দুই সতীর্থ। কিন্তু ম্যানচেস্টার সিটির মিডফিল্ডার সুযোগটা নষ্ট করেন।

গোল শোধে মরিয়া সুইডেন দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ফিরতে পারতো ম্যাচে। ৪৭ মিনিটে লুইডউইগ অগাস্টিনসনের ক্রস থেকে বক্সের মধ্যে দুর্দান্ত এক হেড নিয়েছিলেন মার্কাস বার্গ। ইংলিশ গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড সেটা বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে পড়ে এক হাতে বাইরে বের করে দেন।

এরই মধ্যে ৫৮ মিনিটে আরেকটি ধাক্কা খেয়ে বসে সুইডেন। সংঘবদ্ধ একটি আক্রমণ থেকে বল পেয়েছিলেন হেসে লিনগার্ড, ক্রস করেন বক্সের মধ্যে। বল পেয়ে তাতে মাথা ছুঁইয়ে দেন বক্সের বাঁ পাশে থাকা ডেলে আলি। তার দুর্দান্ত হেডে ২-০তে এগিয়ে যায় ইংল্যান্ড।

ম্যাচের বাকি সময় সুইডেন কয়েকটি সুযোগ পেলেও তা থেকে গোল বঞ্চিত হয়। অন্যদিকে লিড বাড়ানোর সুযোগ আসে ইংল্যান্ডেরও, কিন্তু ব্যর্থ হয় তারা। তবে নির্ধারিত সময়ে আর কোনো গোল না হওয়ায় শেষ পর্যন্ত ২-০ গোলের জয় নিয়ে সেমিফাইনালের আনন্দে মাতে সাউথগেটের শিষ্যরা।

রাতে অন্য কোয়ার্টারে রাশিয়া ও ক্রোয়েশিয়ার মধ্যে জয়ী দলের সঙ্গে শেষ চারে খেলবে ইংল্যান্ড।