ভেদাভেদ ভুলে ধানের শীষের পক্ষে কাজ করার আহ্বান: সিলেট জেলা বিএনপি

 

সময়ের ডাক:: সিলেট জেলা বিএনপি নেতৃবৃন্দ বলেছেন- আসন্ন সিসিক নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়েছে বিএনপি। গণতন্ত্রের নেত্রীকে কারাগারে রেখে নির্বাচনে যাওয়া খুবই কষ্টকর। তবুও গণতন্ত্রের স্বার্থে সিসিক নির্বাচনে যাচ্ছে বিএনপি। তাই আসন্ন সিসিক নির্বাচনে সিলেট সিটির উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখার স্বার্থে ধানের শীষ প্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরীকে বিজয়ী করতে বিএনপি নেতাকর্মীদের অতন্দ্র প্রহরীর ভুমিকা পালন করতে হবে। ব্যক্তি আরিফের প্রতি অনেকের ক্ষোভ থাকতে পারে কিন্তু ধানের শীষের প্রতি নয়। তাই সকল ভেদাভেদ ভুলে সিলেট সিটি নির্বাচনে ধানের শীষের বিজয় নিশ্চিত করার মাধ্যমে প্রমাণ করতে হবে সিলেট নগরী বিএনপির শক্তিশালী ঘাটি। সরকারের হুমকী ধামকী রক্ত চক্ষুকে উপেক্ষা করে জেলা বিএনপির সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের স্ব স্ব অবস্থান থেকে ধানের শীষের বিজয়ের লক্ষ্যে কাজ করতে হবে।

শনিবার সিলেট জেলা বিএনপির উদ্যোগে ষড়যন্ত্রমুলক মিথ্যা মামলায় কারান্তরীণ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুচিকিৎসা, তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দেয়া সাজা, গ্রেফতারী পরোয়ানা ও দায়েরকৃত সকল মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে, আসন্ন সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে ধানের শীষকে বিজয়ী করার লক্ষে অনুষ্ঠিত যৌথ সভায় নেতৃবৃন্দ উপরোক্ত কথা বলেন।

বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও সিলেট জেলা সভাপতি আবুল কাহের চৌধুরী শামীমের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক আলী আহমদের পরিচালনায় শহরতলীর খাদিমস্থ সুচনা কমিউনিটি সেন্টারে অনুষ্ঠিত সভায় জেলা বিএনপির কার্যনির্বাহী পরিষদের সকল সদস্যগণ এবং সকল উপজেলা ও পৌর বিএনপির শীর্ষ নেতৃবৃন্দসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

জেলা বিএনপির সহ-ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক মাওলানা সাদিকুর রহমানের পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে সুচীত সভায় কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে থেকে উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির কেন্দ্রীয় সিলেট বিভাগীয় সহ-সংগঠনিক সম্পাদক সাবেক এমপি দিলদার হোসেন সেলিম ও কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদপ্রার্থী আরিফুল হক চৌধুরী।

দিলদার হোসেন সেলিম বলেন- সিলেট সিটি নির্বাচন নিয়ে অবৈধ সরকারের সকল ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে নেতাকর্মীদেরকে সতর্ক থাকতে হবে। রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে ধানের শীষের বিজয় ত্বরান্বিত করতে নেতাকর্মীদের মধ্যে ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলতে হবে। আমরা কোন ব্যক্তির পক্ষে নয়, উন্নয়ন অগ্রগতি ও গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের প্রতীক ধানের শীষের বিজয়ের লক্ষ্যে লড়বো।

আরিফুল হক চৌধুরী বলেন- বিএনপি আমার ঠিকানা। এর বাইরে আমার কোন পরিচয় নেই। অতীতের সকল ত্রুটি সংশোধন করে আমি আমার দলের নেতাকর্মীদের নিয়েই সিলেটের চলমান উন্নয়ন সম্পুর্ন করতে চাই। আমি ব্যক্তি আরিফের ত্রুটি থাকতে পারে। কিন্তু দলের স্বার্থে দেশের স্বার্থে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। এই বিজয় আমার নয়, বিজয় হবে ধানের শীষের, বিজয় হবে গণতন্ত্রের, বিজয় হবে উন্নয়নের। স্ব স্ব অবস্থান থেকে ধানের শীষের বিজয়ের লক্ষ্যে আপনাদের মেধা শ্রম ও সহযোগিতাই কাংখিত সাফল্য নিশ্চিত করতে পারে।

সভাপতির বক্তব্যে আবুল কাহের চৌধুরী শামীম বলেন- দেশ চরম ক্রান্তিকাল অতিবাহিত করছে। গণতন্ত্রের জন্য লড়তে গিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া আজ কারাগারে বন্দী। কিন্তু তাই বলে আমরা গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার আন্দোলন থেকে বিচ্যুত হতে পারিনা। আসন্ন সিসিক নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসেবে নিয়ে ধানের শীষকে বিজয়ী করার মাধ্যমে আমাদের কারান্তরীণ দেশনেত্রীকে সিলেট সিটি উপহার দিয়ে প্রমাণ করবো সিলেট হচ্ছে বিএনপির দুর্জয় ঘাটি। অবৈধ সরকার হুমকী-ধামকী দিয়ে আমাদের বিজয়কে ছিনিয়ে নেয়ার ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। কিন্তু আমরা সেটা হতে দেবনা। ইস্পাত কঠিন ঐক্যের মাধ্যমে সেই ষড়যন্ত্র নস্যাত করে দিতে হবে।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন- জেলা বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আবুল কাহির চৌধুরী, ওসমানীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ময়নুল হক চৌধুরী, জেলা সহ-সভাপতি মহিউস সুন্নাহ চৌধুরী নার্জিস, কানাইঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আশিক উদ্দিন চৌধুরী, জেলা সহ-সভাপতি এ.এম মুছাব্বির, এ.কে.এম তারেক কালাম, শাহাব উদ্দিন, সৈয়দ মোতাহির আলী, জালাল উদ্দিন চেয়ারম্যান, আজির উদ্দিন চেয়ারম্যান, গোয়াইনঘাট উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হাকিম চৌধুরী, এনায়েত উল্লাহ, এডভোকেট কাউসার রশীদ বাহার, উপদেষ্ঠা নজরুল ইসলাম ময়ুর, আফরোজ মিয়া, শহীদ আহমদ চেয়ারম্যান, আহমেদুর রহমান চৌধুরী মিলু, ইলিয়াস মেম্বার ও মাজহারুল ইসলাম ডালিম, জেলা যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মামুনুর রশীদ মামুন চেয়ারম্যান, ইশতিয়াক আহমদ সিদ্দিকী, মইনুল হক, কোষাধ্যক্ষ ডাঃ মোমতাজ আহমদ রিফা, সাংগঠনিক সম্পাদক এডভোকেট হাসান আহমদ পাটোয়ারী রিপন, আবুল কাশেম ও শামীম আহমদ এবং প্রচার সম্পাদক নিজাম উদ্দিন জায়গীরদার প্রমুখ।