প্রচ্ছদ > আন্তর্জাতিক > চারতলায় ঝুলন্ত শিশুকে বঁচিয়ে ফ্রান্সের নাগরিকত্ব পেলেন মালির অভিবাসী 

চারতলায় ঝুলন্ত শিশুকে বঁচিয়ে ফ্রান্সের নাগরিকত্ব পেলেন মালির অভিবাসী 

আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে চারতলায় ঝুলে থাকা চার বছরের এক শিশুকে বাঁচিয়ে মিডিয়ার কল্যাণে রাতারাতি তারকা বনে গেছেন মালির অভিবাসী মামৌদো গাসসামা। ওই সাহসিকতার কল্যাণে পেয়েছেন ফ্রান্সের নাগরিকত্ব। সুযোগ মিলছে দেশটির দমকল বাহিনীতে কাজেরও।

ফ্রান্সের কৌঁসুলিরা জানিয়েছেন, ওই ঘটনার সময় ব্যালকনিতে ঝুলন্ত শিশুটির বাবা বাইরে গিয়ে পোকেমন গো খেলছিল।

অভিভাবক হিসেবে দায়িত্বে অবহেলার দায়ে ওই শিশুর বাবাকে আটক করেছে পুলিশ। শিশুটির বাবার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হলে তার দুই বছর জেল হতে পারে।

ফরাসি কৌঁসুলি ফ্রাঁসোয়া মলিন্স বলেছেন, ওই ব্যক্তি তার চার বছরের শিশু বাসায় একা রেখে কেনাকাটা করতে যান। তবে বাসায় ফেরার আগে তার ফোনে পোকেমন গো খেলায় ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

এর আগে, গত শনিবার সন্ধ্যায় উত্তর প্যারিসে স্পাইডারম্যানের মতো করে একটি ভবন বেয়ে ঝুলে থাকা চার বছরের শিশুকে বাঁচান মামৌদো। নিজের নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করে মাত্র ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে শিশুটিকে রক্ষা করেন তিনি।

মামৌদোর এমন কাজের প্রশংসা করেছেন সবাই। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ উদ্ধারকাজের ভিডিওটি কয়েক মিলিয়ন মানুষ দেখেছে।

এরপর ২২ বছর বয়সী মামৌদো এলিসি প্রাসাদে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে দেখা করেন। প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রোঁ মামৌদোর এই উদ্ধারকাজকে ‘অসাধারণ’ উল্লেখ করে বলেন, আপনি একটি শিশুকে বাঁচিয়েছেন। আপনি না থাকলে ওই শিশুর যে কী হতো তা কেউ জানে না। এটা করার জন্য সাহস এবং সামর্থ্যের প্রয়োজন।

প্রেসিডেন্ট প্রাসাদে থাকাবস্থায় মামৌদোকে একটি মেডেল এবং সাহসিকতার সার্টিফিকেট দেয়া হয়।

ওই উদ্ধারকাজ নিয়ে মামৌদো বলেন, আমি এ কাজটি করেছি কোনও চিন্তা না করেই। আমি দেখলাম সবাই চিৎকার করছে এবং গাড়ির হর্ন বাজাচ্ছে। ঠিক তখনই আমি বিল্ডিংয়ের বারান্দা দিয়ে উপরে উঠেছি। ঈশ্বরকে ধন্যবাদ, আমি শিশুটিকে রক্ষা করতে পেরেছি।

তিনি আরও বলেন, আমি শিশুটিকে উদ্ধারের পর ভয় পেয়ে গিয়েছিলাম। শোবার ঘরে গিয়ে আমার শরীর কাঁপছিল। আমি দাঁড়ানো থেকে বসে পড়েছিলাম।