ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে নবীগঞ্জে  শ্বাশুড়ি-পুত্রবধূ খুন

সময়ের ডাক:  ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে  হত্যা করা হয়েছে এক যুক্তরাজ্য প্রবাসীর স্ত্রী ও মাকে। এ মামলায় গ্রেপ্তার হওয়া দু’জন বৃহস্পতিবার আদালতে জবানবন্দিতে এমনটি জানিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৭ মে) দুপুর ১২টার দিকে হবিগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট শম্পা জাহানের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন গ্রেপ্তার হওয়া দুই আসামি শুভ রহমান ও আবু তালেব।

আদালত পুলিশের পরিদর্শক (ওসি) ওহিদুর রহমান জানান, আসামি শুভ রহমান ও আবু তালেবকে দুপুরে আদালতে হাজির করা হলে তারা ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে জবানবন্দি দেয়।

তারা আদালতকে জানায়, দীর্ঘদিন ধরে তারা লন্ডনপ্রবাসী আখলাক চৌধুরী গুলজারের স্ত্রী রুমী বেগমের ওপর নজর রাখছিল। প্রায়ই তারা রুমী বেগমের মোবাইল ফোনে কল দিয়ে তাকে উত্ত্যক্ত করতো। গত ১৩ মে দিনগত রাত ১২টার দিকে তারা রুমী বেগমের শোবার ঘরে প্রবেশ করে। এসময় রুমিকে ধর্ষণের চেষ্টা চালায় তারা। বিষয়টি টের পেয়ে রুমী বেগম চিৎকার শুরু করলে তার শাশুড়ি মালা বেগম ছুটে আসেন।

এসময় ক্ষিপ্ত হয়ে তারা (শুভ রহমান ও আবু তালেব) রুমী বেগম ও মালা বেগমকে কুপিয়ে হত্যা করে।

বিকাল ৫টায় প্রেস ব্রিফিং করে একই তথ্য জানান পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা।

পুলিশ জানায়, ঘটনার পর দিন সন্দেহভাজন হিসেবে পাঁচ জনকে আটক করে পুলিশ। তারা হলো– নবীগঞ্জ উপজেলার সাদুল্লাপুর গ্রামের ক্বারী আব্দুস সালাম, তার ছেলে সাহিদুর রহমান, একই গ্রামের শুভ রহমান, আবু তালেব ও রিপন সূত্রধর। এর মধ্যে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আব্দুস সালাম, সাহিদুর রহমান ও রিপন সূত্রধরকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। আর শুভ রহমান ও আবু তালেবকে গ্রেফতার দেখিয়ে কারাগারে রাখে। সেখান থেকে বৃহস্পতিবার তাদের আদালতে হাজির করা হয়। এরপর তাদের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি শেষে আদালতের নির্দেশে আবার কারাগারে পাঠানো হয়।

১৩ মে দিনগত রাতে নবীগঞ্জের কুর্শি ইউনিয়নের সাদলাপুর গ্রাম থেকে রুমী বেগম ও মালা বেগমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর ১৫ মে এ ঘটনায় রুমি বেগমের ভাই বাদী হয়ে নবীগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

এদিকে, মা ও স্ত্রী খুনের খবর পেয়ে লন্ডন থেকে দেশে ছুটে এসেছেন আখলাক চৌধুরী গুলজার। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘পরিকল্পিতভাবে আমার মা ও স্ত্রীকে হত্যা করা হয়েছে। হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই।’

স্থানীয়রা জানান, সাদলাপুর গ্রামের মৃত রাজা মিয়ার ছেলে আখলাক মিয়া গুলজার দীর্ঘদিন ধরে লন্ডনে বসবাস করছেন। দুই বছর আগে তিনি দেশে এসে নিজ গ্রামের কুয়েতপ্রবাসী সুজন চৌধুরীর মেয়ে রুমি বেগমকে বিয়ে করেন। বিয়ের পর গুলজার ফের লন্ডন ফিরে গেলে তার বাড়িতে মা ও স্ত্রী থাকতেন।জৈন্তায় বিজিএফের চাল পাচারের ঘটনায় নাগরিক বিক্ষোভ সভা

জৈন্তাপুর প্রতিনিধি :: জৈন্তাপুর উপজেলার চারিকাটা ইউপির থেকে রাতে হতদরিদ্রদের জন্য সরকারী বিশেষ বিজিএফ এর ৩৪বস্তা চাউল পাচারের ঘটনায় এলাকায় বিক্ষোভ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

জড়িতদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী নাগরিক কমিটির।

ঘটনায় পাচারকারীদের বিরুদ্ধে আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহনের দাবিতে চারিকাটা ইউনিয়নবাসীর উদ্যোগে বুধবার বিকেল ৫টায় স্থানীয় চতুল বাজার সংলগ্ন সরুখেল চৌরাস্তা প্রাঙ্গনে সচেতন নাগরিক কমিটির আয়োজনে বিশাল প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

জালাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে ও ইমরান হোসেন দুলালের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- সাবেক জৈন্তাপুর উপজেলা সেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি উপজেলা আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল কাদির, সমাজসেবী সুলতান করিম, আলতাফ হোসেন বেলাল, রাহেল আহমদ, ফরিদ উদ্দিন, হুসাইন আহমদ, শরিফ আহমদ, সালমান রশিদ, মনির আহমদ প্রমুখ।

সভায় বক্তারা বলেন, সরকারের বিশেষ তহবিল হতে বিজিএফ’র চাল ও টাকা প্রতিটি ইউনিয়নের চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে দুস্তদের মধ্যে বিতরন করার কথা। কিন্তু চারিকাটা ইউনিয়নের ক্ষেত্রে কি হয়েছে আমরা জানি না। অতচ দুস্তরা ইউনিয়নে হাজির হলেও চাল পায়নি। কিন্তু রাতের অন্ধকারে হঠাৎ করে চাউল পাচার হওয়ার প্রক্কালে এলাকাবাসী ৩৪বস্তা বিজিএফ এর চাল আটক করে উপজেলা নির্বাহীর নিকট হস্তান্তর করে।

তারা বলেন, আমরা বিশ্বাস করি ইতিপূর্বেও এই প্রকল্পের টাকা ও চাল চক্রটি আত্মসাৎ করেছে। চক্রটি যত বড় শক্তিশালী হোক না কেন এবং যে দলের ব্যক্তি হউক আমরা তার দৃষ্টিন্তমূলক শাস্তি দাবি করছি।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসন আইনানুগত ব্যবস্থা গ্রহন করছে না। আটককৃত মূল আসামীদের বাঁচাতে বিভিন্ন ভাবে অপতৎপরতা চালচ্ছে যদি কোন অবস্থায় তাদেরকে ছাড় দেওয়া হয় তাহলে আমরা দূর্বার আন্দোলন করব।